[Close]

রূপকথা থেকে উঠে আসা কিছু বিস্ময়কর রোগ।


আজ আপনাদের কিছু অদ্ভুত ও বিস্ময়কর রোগের গল্প শোনাবো। এই সব রোগের কথা আপনি গল্প কেচ্ছা কাহিনীতে বহুত শুনেছেন। যেমন ধরুন মানুষের পাথর হয়ে যাওয়া কিংবা রক্তচোষা মানুষের কথা।

বিশ্বাস করতে কষ্ট হলেও রূপকথা থেকে উঠে আসা কিছু রোগ বাস্তবেই আছে। এই বিস্ময়কর রোগগুলো নিয়েই আমাদের আজকের আয়োজন।

১। স্টোনম্যান সিনড্রোম।







আমরা গল্পে প্রায় শুনে থাকি মানুষের পাথর কিংবা সোনায় পরিণত হয়ে যাওয়ার কথা। বিস্ময়কর হলেও সত্য এমন রোগ পৃথিবীতে আছে যা আপনাকে পাথর না হলেও পাথরের মত বানিয়ে দিতে পারে। এটি ঘটে থাকে এসিভিআর-ওয়ান নামের একটি জিনের ফলে। এই জিন আক্রান্ত ব্যক্তির নরম পেশীকে শক্ত হাড়ে রূপান্তরিত করে ফেলে এবং ওই হাড় অস্ত্রপাচারে সরিয়ে ফেললে পুনরায় আরও ব্যপকভাবে পেশি হাড়ে রূপান্তরিত হতে থাকে। এটা খুবই কষ্টদায়ক একটি জিনগত সমস্যা যা প্রায় সারাজীবন চলতে থাকে। এই রোগের কোন প্রতিষেধক তৈরি হয়নি। কিন্তু আশার বাণী এই যে, এটা খুবই দুর্লভ একটা রোগ যা এক কোটিতে এক জনের হয়ে থাকে।

২। পলিমেলিয়া।







গল্প পুরাণে শোনা যায় চার পায়ের মানব, দুই মাথা দৈত্য এমনকি চার হাতের মানুষের কথা। কিন্তু বাস্তবে কি এমন সম্ভব? সম্ভব, যদি কেউ পলিমেলিয়া রোগে আক্রান্ত হয়। এটি হল এক ধরনের ব্যাধি যেখানে আক্রান্ত ব্যক্তি স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি অঙ্গ নিয়ে জন্মায়। এবং এই অঙ্গ হাত, পা, মাথা এমনকি …… শরীরের যেকোনো অঙ্গ হতে পারে। পাকিস্থানে কিছুদিন আগে এক শিশু ৬ টি পা নিয়ে জন্মগ্রহণ করে। আমরা প্রানি জগতে এই রোগের উদাহরণ দেখতে পায় যেমন দুই মাথা গরু, ছয় পায়ের বাছুরের কথা প্রায় শোনা যায়। কিন্তু বেশীরভাগ ক্ষেত্রে দেখা যায় অতিরিক্ত অঙ্গগুলো অচল হয়ে থাকে।

৩। নেকড়ে মানব।







‘বিউটি এন্ড দি বিস্ট’ মুভি তো অনেকেই দেখেছেন। কিন্তু কখনো কি মনে হয়েছে কোন অভিশাপ আপনাকে ও লোমশ পশুতে পরিণত করে দিতে পারে। হ্যাঁ এই অভিশাপ হচ্ছে এই বিস্ময়কর নেকড়ে মানব রোগটি। এই রোগের আসল নাম হাইপারটিকোসিস। যারা এই রোগে আক্রান্ত হয় তাদের গায়ে অস্বাভাবিকভাবে লোমের আকার ও পরিমান বৃদ্ধি পেতে থাকে। আক্রান্ত ব্যক্তির পুরো শরীর এমনকি মুখমণ্ডল চিকন লম্বা ঘন লোমে ভরে যায়। ফলে তাদের অনেকটা নেকড়ের মত দেখতে লাগে। তাই এই রোগকে ‘ওয়্যারউলফ সিনড্রোম’ বা নেকড়ে মানব রোগ বলে। জিনগত পরিবর্তনের ফলে এই রোগ হয়ে থাকে।

৪। ভিন্ন ভাষায় কথা বলা।







খুবই অদ্ভুত ধরনের রোগ এটি। আপনারা তো প্রায় শোনেন স্বপ্নে মানুষ এই জিনিস সেই জিনিস পায়। এই রোগ আপনাকে ঠিক স্বপ্নের মতই বাঙ্গালী থেকে চীনা মানুষ বানিয়ে দিতে পারে। হ্যাঁ আপনি বাংলা ভুলে হুট করেই চীনা বা অন্য কোন ভাষায় কথা বলা শুরু করতে পারেন। এতে আপনি ওই ভাষা জানেন কি না সেটা ব্যাপার না কিন্তু আপনার কথা বলার ঢং ঠিক ওই ভাষার মত হয়ে যাবে। মানুষ মাথায় আঘাত পেলে কিংবা স্ট্রোক করলে এই ঘটনা ঘটতে পারে।

৫। ভ্যাম্পায়ার ডিজঅর্ডার।







একদম পুরদস্তুর রুপকথা থেকে উঠে আসা একটি রোগের গল্প এখন আপনাদের শোনাবো। এই রোগের নাম ভ্যাম্পায়ার ডিজঅর্ডার। এই রোগের চিকিৎসাশাস্ত্র মতে দাঁত ভাঙা নামটা হল ‘হিপোহাইড্রোটিক এক্টোডার্মাল ডিজপ্লেসিয়া’। এই রোগের প্রধান লক্ষণ হল রক্তচোষা বাঁদুরের মত (যাকে আমরা ভ্যাম্পায়ার বলি) মুখের উপর পাটিতে দুটো সূচালো দাঁত। যার ফলে এদেরকে দেখতে অনেকটা রুপকথা বা সিনেমার রক্তচোষা মানুষ বলে মনে হয়। এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা রোগা ও চিকন হয়ে থাকে এবং এদের চোখগুলো বসা হয়। চোখের নিচে কাল দাগ পরে থাকে এবং প্রায় ক্ষেতে এদের মাথায় কোন চুল থাকে না।







এদের দেহের তাপমাত্রা অস্বাভাবিকভাবে কম থাকে এবং এরা রোদ ও গরম সহ্য করতে পারে না। কারন এই ব্যক্তিদের ঘামগ্রন্থি থাকে না। ফলে এদের দেহে তাপমাত্রা কমানোর কোন জৈবিক প্রক্রিয়া নেই। তাই এরা দিনের বেলা বাইরে বের হতে পারে না।

এখন আপনি হয়ত ভাবছেন রুপকথাগুলো তাহলে এভাবে তৈরি হয়েছে। একদম ঠিক ভাবছেন। এই অদ্ভুত ও দুর্লভ রোগগুলোকে মানুষ রুপকথা বানিয়ে ফেলেছে। বলতে গেলে রুপকথাগুলো উঠে এসেছে এই বিরল প্রাকৃতিক বাস্তবতাগুলো থেকে।

আজকের এই আয়োজন কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না। এই ধরনের আরো পোস্ট পেতে চাইলে লাইক ও শেয়ার দিয়ে অনুপ্রাণিত করুন।







<>

Bangla24hour.com © 2017